সোমবার, ২২ এপ্রিল ২০২৪, ১১:৪৩ পূর্বাহ্ন

সর্বশেষ সংবাদ :
ভান্ডারিয়ায় ২৫ ও ২৬ এপ্রিল স্পেশালাইজড মেডিক্যাল ক্যাম্প অনুষ্ঠিত হবে ভান্ডারিয়ায় প্রাণিসম্পদ প্রদর্শনী মেলার উদ্বোধন ঝালকাঠিতে ট্রাক চাপায় নিহতের সংখ্যা বেড়ে ১৪ ঝালকাঠিতে ট্রাক-কার-অটোর সংঘর্ষ, নিহত ১২ বজ্রপাতে স্কুল ছাত্রের মৃত্যু ভান্ডারিয়া পৌরসভা পরিস্কার পরিচ্ছন্ন বিষয়ক মতবিনিময় সভা নির্বাচনি এলাকার খাজনা মওকুফের ঘোষণা দিলেন মহিউদ্দিন মহারাজ কাউখালীতে কীটনাশক পান করে কৃষকের আত্মহত্যা কাউখালীতে অল্পের জন্য প্রাণে রক্ষা পেল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কোয়ার্টারে থাকা একটি পরিবারের ৪ জন সদস্য ভান্ডারিয়ায় পাসপোর্ট নিয়ে ফেরা হলো না ঘরে, সড়ক দুর্ঘটনায় কলেজ ছাত্রের মৃত্যু বুয়েট নিয়ে সাবেক কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের নেতা শাফায়েত হোসেন অভির কিছু কথোপকথন বীর মুক্তিযোদ্ধারা হলেন জাতীর শ্রেষ্ঠ সন্তান -মহিউদ্দিন মহারাজ এমপি কাউখালীতে বিভিন্ন কর্মসূচির মধ্য দিয়ে মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উদযাপন কাউখালীতে মৎস্য সুফলভোগী জেলেদের মাঝে বকনা বাছুর বিতরন ভান্ডারিয়ায় বিহারী লালমিত্র পাইলট মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের স্কাউটদের দীক্ষা অনুষ্ঠান ভান্ডারিয়ায় পিকআপে করে গরু চুরির সময় ৩ চোর আটক কাউখালী উপজেলা পরিসংখ্যান কার্যালয়ে জনবল সংকট থাকার কারণে জনগণ কাঙ্ক্ষিত সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে পিরোজপুরে স্ত্রী হত্যা মামলায় যাবজ্জীবন সাজা প্রাপ্ত স্বামী ১৪ বছর পর গ্রেপ্তার পিরোজপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় আবারো ৩ জন নিহত পিরোজপুরের এক জেলের জালে ধরা পড়ল ২০ লাখ টাকার লাক্ষা মাছ
ভালুকায় বন বিভাগের শতকোটি টাকার জমি দখল: মামলার পাহাড়

ভালুকায় বন বিভাগের শতকোটি টাকার জমি দখল: মামলার পাহাড়

ভালুকায় বন বিভাগের শতকোটি টাকার জমি দখল: মামলার পাহাড়

ময়মনসিংহের ভালুকা বন বিভাগের হবিরবাড়ি মৌজার সিডস্টোর আমতলী এলাকায় প্রায় শত শত কোটি টাকার জমি দখল করে অবৈধ স্থাপনা নির্মাণ কাজ শুরু করেছে স্থানীয় ভূমি খেকোরা। এ ঘটনায় অভিযোগ ওঠার পরেও স্থানীয় বন বিভাগ রহস্যজনক নীরবতা পালন করছে। এ দখলবাজির প্রেক্ষিতে বন কর্মকর্তারা কয়েক হাজার মামলা দায়ের করেছেন।

সরেজমিনে খোঁজ নিয়ে দেখা গেছে, ভালুকা রেঞ্জের হবিরবাড়ী মৌজার হবিরবাড়ী বাজার সংলগ্ন ১৫৪ নং দাগের ২০১ একর বনভূমি দখল করে নিয়েছেন স্থানীয় ১০৯ থেকে ১৬০ জনের একটি ভূমিখেকো সিন্ডিকেট। তারা ৫ থেকে ৬ টি দোকান নির্মাণসহ সেখানকার পেছনের বিশাল খালি জায়গাটিতে রিং কালভার্ট নির্মাণ কারখানা স্থাপন করছে। স্থানীয় এলাকাবাসী এ বিষয়টি সরকার দলীয় এমপি, বিভাগীয় বন কর্মকর্তা, ভালুকা বনবিভাগের সহকারী বনসংরক্ষক, রেঞ্জ কর্মকর্তা, বীট কর্মকর্তাগণকে অবহিত করলেও এখন পর্যন্ত বনের জমি দখলমুক্ত কিংবা অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ অভিযান হয়নি।

গত ২০ ফেব্রুযারী ময়মনসিংহ টাইমসের অনুসন্ধানী দল হবিরবাড়ী এলাকায় গেলে কথা হয় ভালুকা বনবিভাগের সহকারী বনসংরক্ষক আব্দুল ওয়াদুদের সঙ্গে।
তিনি জানান, ময়মনসিংহ বন বিভাগের নিয়ন্ত্রণাধীন ভালুকা বনভিাগে ২৩ হাজার একর বনভূমি রয়েছে। এর মধ্যে প্রায় ৮ হাজার একর বনভূমি সংরক্ষিত রয়েছে। অথচ বাকি ১৫ হাজার একর বনভূমি দখল হয়ে গেছে। এ দখলকারী কারা এবং এর সঙ্গে কারা জড়িত এসব বিষয়ে কৌশলী উত্তর দেন তিনি। তিনি বলেন, ‘আমরা নিজেরাই নিরাপত্তাহীনতায় থাকি। দখলবাজ ভূমিখেকোদের নিয়ে কথা বললে উল্টো বিপদে পড়তে হবে। আর এসব বিষয়ে থানা পুলিশ আমাদের পাশে দাঁড়ায় না।

তবে স্থানীয় এলাকাবাসীর অভিযোগ, এ ভূমিখেকোদের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট বনবিভাগের কতিপয় কর্মকর্তা ও প্রভাবশালীদের নিবিড় যোগসাজশ রয়েছে।
ভালুকার এক শিক্ষক জসিম তালুকদার জানান, সরকারের শতশত কোটি টাকার সম্পদ বনবিভাগের অবহেলার কারণে ধ্বংস হয়ে যাচ্ছে। ভালুকার সংরক্ষিত বনভূমি এখন বিরাণ ভূমিতে পরিণত হয়েছে। বনবিভাগের সম্পত্তি উদ্বার করার জন্যে তিনি সংশ্লিষ্টদের জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

আওয়ামী লীগ নেতা নজরুল ইসলাম মানিক ময়মনসিংহ টাইমসের জানান, ১৫৪ দাগে ২৯৪ একর জমির মধ্যে ২০১ একর বনভূমি বনবিভাগের রয়েছে।
জেলা প্রশাসকের ১ নং খাস খতিয়ানে এসব জমি অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। দখলবাজ চক্রটি সকল জমি তাদের দখলে নিয়ে রাতারাতি কাগজ তৈরী করেছে।
এ কাগজের ভিত্তিতেই তারা বনের জমি দখল করে নিয়ে নিজেদের মালিকানা দাবী করছে। তিনি আরো জানান, বনের জমি দখলের ঘটনায় শত শত মামলা হয়। চলতি বছরে বীট কর্মকর্তা লোক দেখানো একটি মামলা করেন। ময়মনসিংহ-ঢাকা মহাসড়কের পাশে আমতলী এলাকায় ভালুকা বনরেঞ্জ থেকে মাত্র আধা কিলোমিটার দূরে হবিরবাড়ী মৌজায় বনবিভাগের বনভূমি অবৈধভাবে বাউন্ডারী শহীদ দখল করে নেয়।

উপজেলার হবিরবাড়ি এলাকার কৃষক জুয়েল মিয়া জানান, বাউন্ডারী শহীদ বিএনপি করেন। কিন্তু বর্তমান আওযামী লীগ সরকার ক্ষমতায় থাকার পরেও তার প্রভাবে মানুষ ভীতসন্ত্রস্ত। তার বিরুদ্ধে কেউ মামলা করতে সাহস পায় না। স্থানীয় এলাকাবাসী জানান, বাউন্ডারী শহীদ গোটা এলাকায় এক আতঙ্কের নাম। এক এগারো ও পরবর্তী সময়ে অস্ত্র আইনসহ বিভিন্ন মামলায় গ্রেফতার হলেও থামেনি তার বেপরোয়া দখলবাজি। তার জিরো থেকে হিরো হওয়া, রাতারাতি কোটিপতি বনে যাওয়ার ঘটনার খবর স্থানীয় জনসাধারণের মুখে মুখে।

ময়মনসিংহের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা এ কে এম রুহুল আমিন ময়মনসিংহ টাইমসকে জানান, গত বছরে ময়মনসিংহ বনবিভাগে রীড মামলা ৫৮, সিভিল রিভিশন মামলা ২৫, দেওয়ানি মামলা ১২৫, পিওআর মামলা ১৮১০, ইউডিওআর মামলা ১৫৫, সার্টিফিকেট মামলা ৩০, অন্যান্য মামলা ৪ দায়ের করা হয়। ছয়টি মামলা বনবিভাগের পক্ষে রায় হয়েছে বলে তিনি জানান। উল্লেখ্য, গত ৪-১২-১৯ ইং তারিখ ময়মনসিংহের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা এ কে এম নুরুল আমিনের স্বাক্ষরিত একটি প্রতিবেদন প্রধান বন সংরক্ষক বরাবর প্রেরণ করেন।

 

সুত্র ময়মনসিং টাইমস

 

নিউজটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন




© All rights reserved © 2019 pirojpursomoy.com
Design By Rana