সোমবার, ০৪ মার্চ ২০২৪, ০১:১৪ পূর্বাহ্ন

সর্বশেষ সংবাদ :
রাষ্ট্রীয় সম্মান নিয়ে কাউখালীর বীর মুক্তিযোদ্ধা হাবিবুর রহমানের শেষ বিদায় কাউখালীতে ব্রীজ নির্মান কাজ ৫ বছরে শেষ না হওয়ায় জনগনের ভোগান্তি চরমে কাউখালীতে জাতীয় স্থানীয় সরকার দিবস উপলক্ষে শোভাযাত্রা ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত স্মার্ট জাতীয় পরিচয়পত্র উন্নত ও স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ে তোলার একটি অংশ–মহিউদ্দিন মহারাজ (এমপি) মায়ের লাশ বাড়িতে রেখে এসএসসি পরীক্ষার হলে দুই ভাই ভান্ডারিয়ায় আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত বীর মুক্তিযোদ্ধা শাহাবুদ্দিন শাহ বাবুল মারা গেছেন পিরোজপুরে প্রতারণা মামলায় এহ্সান গ্রুপের অফিস সহকারী নাজমুল গ্রেফতার কাউখালীতে পানিতে ডুবে শিশুর মৃত্যু কাউখালীতে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনকে সামনে রেখে সম্ভাব্য প্রার্থীদের ব্যাপক প্রচারনা ভান্ডারিয়া বিহারী লাল মিত্র পাইলট মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের বার্ষিক ক্রীড়া নাজিরপুরে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় ২ শিক্ষার্থী নিহত কাউখালীতে উপজেলা প্রশাসন অনাবাদি জমি আবাদে আনার উদ্যোগ গ্রহণ করেছে কাউখালীতে অবৈধ জাল দিয়ে মাছ ধরার অপরাধে জেলেকে পাঁচ হাজার টাকা জরিমানা করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত কাউখালীতে অগ্নিকাণ্ডে বসতবাড়ি পুড়ে ছাই হয়ে গেছে সংসদে ইমাম-মুয়াজ্জিনের সম্মানজনক ভাতা দাবি মহিউদ্দীন মহারাজের যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের সংসদীয় স্থায়ী কমিটি সদস্য হয়েছে মহিউদ্দীন মহারাজ পিরোজপুরে উজ্জ্বল হত্যার মামলার প্রধান আসামি গ্রেপ্তার পিস্তল ঠেকিয়ে শিক্ষককে হাতুরিপেটার অভিযোগ বেবী মালেঙ্গা খ্যাত কাউখালীর ক্রিকেটার সোহাগের স্বপ্ন ছাই হয়ে যাবে অর্থাভাবে
বিশ্বের তৃতীয় বিষধর সাপকে গিলে খেল ব্যাঙ, অতঃপর…!

বিশ্বের তৃতীয় বিষধর সাপকে গিলে খেল ব্যাঙ, অতঃপর…!

খাদকই হয়ে গেল খাদ্য। পৃথিবীর স্থলভাগে যে সব সাপ পাওয়া যায়, তাদের মধ্যে তৃতীয় সবচেয়ে বিষধর সাপ হলো ‘কোস্টাল টাইপান’। বড় বড় প্রাণীরা তার এক ছোবলেই মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়তে পারে। সেই ‘কোস্টাল টাইপান’-কেই জ্যান্ত গিলে খেয়ে ফেলল একটি সবুজ রঙের গেছো ব্যাঙ।

অস্ট্রেলিয়ার কুইন্সল্যান্ডে ‘স্নেক টেক অ্যাওয়ে’ এবং ‘চ্যাপেল পেস্ট কন্ট্রোল’-নামে দু’টি সংস্থা চালান জেমি চ্যাপেল। কিচুদিন আগে তাকে ফোনে উৎকণ্ঠিত এক নারী জানান, তার বাড়িতে একটি বিষধর সাপ ঢুকে পড়েছে। সঙ্গে সঙ্গে গাড়ি ঘুরিয়ে ওই নারীর বাড়ি ছোটেন চ্যাপেল। সেখানে পৌঁছেতো চ্যাপেলের চোখ কপালে। তিনি দেখেন, কোথায় সাপ, তার বদলে বসে রয়েছে একটি বড়সড় গেছো ব্যাঙ। আর সে গিলে খাচ্ছে সাপটিকে।
চ্যাপেল জানিয়েছেন, তিনি সাপটিকে উদ্ধারের চেষ্টা করেছিলেন। কিন্তু ব্যাঙটি তার মুখের খাবার ছেড়ে দিতে রাজি ছিল না। তাই সাপটিকে ব্যাঙের পুরোপুরি গিলে খাওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করেন চ্যাপেল। কারণ তিনি ভয় পাচ্ছিলেন, ব্যাঙটি সাপটিকে যদি উগরে দেয়। সাপটিকে পুরো গিলে খেয়ে নেওয়ার পর ব্যাঙটিকে একটি পাত্রে ভরে বাড়ি ফিরে যান চ্যাপেল।

তিনি ভেবেছিলেন, ব্যাঙটি হয়তো মারা যাবে। কিন্তু সেই ব্যাঙ বেঁচে আছে আর লাফিয়েও বেড়াচ্ছে ব্যাঙটি। কয়েকদিন পর্যবেক্ষণে রাখার পর ছেড়ে দেওয়া হবে তাকে বলে জানিয়েছেন চ্যাপেল।

নিউজটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন




© All rights reserved © 2019 pirojpursomoy.com
Design By Rana