বৃহস্পতিবার, ১৮ Jul ২০২৪, ০১:৪০ পূর্বাহ্ন

সর্বশেষ সংবাদ :
কটুক্তির প্রতিবাদে পিরোজপুরে মুক্তিযোদ্ধা ও সন্তানদের মানববন্ধন কাউখালী গাঁজা সহ এক ঔষধ ব্যবসায়ী গ্রেফতার মারা গেছেন ছারছীনার পীর কাউখালীতে বিআরডিবি অফিসের জনবল সংকট, কাঙ্খিত সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে ভুক্তভোগী জনগণ কাউখালীতে ৪০ পিস ইয়াবাসহ দুই মাদক ব্যবসায়ী আটক কাউখালীতে কৃষকদের মাঝে ফলের চারা বিতরণ বালু বোঝাই বাল্ক‌হেডের ধাক্কায় ব্রিজ ভে‌ঙে খা‌লে এক বছরেও পুণ:নির্মাণ হয়নি নাজিরপুরে যে কারনে মাকে কুপিয়ে হত্যা করলো ছেলে ৯ বছরের সাজার জন্য ৩৫ বছর পালিয়েও শেষ রক্ষা হলো না স্কুল ছাত্রী অপহরণের ৩৩ দিন হলেও এখন পর্যন্ত উদ্ধার করা যায়নি কাউখালীতে ৪টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ইসলাম শিক্ষার ক্লাস নিচ্ছেন হিন্দু শিক্ষক পিরোজপুরে বিশ্ব জনসংখ্যা দিবস উপলক্ষে বিশেষ সেবা কার্যক্রম উদ্বোধন কাউখালী সরকারি বালিকা বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের কক্ষে দেখা গেল সাপ কাউখালী উপজেলা অস্থায়ী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেই চিকিৎসক নেই বেড, রোগীদের দুর্ভোগ চরমে কাউখালীতে ঘূর্ণিঝড় রিমালে ক্ষতিগ্রস্থদের মাঝে হাইজিন কিট বিতরন পিরোজপুরে দুঃস্থ ও অসহায় পরিবারের মাঝে ঢেউটিন ও নগদ অথের্র চেক বিতরণ কাউখালীতে জমি জমা নিয়ে সংঘর্ষে আহত ৪, গ্রেপ্তার ৪ নেছারাবাদে রিমালে ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে ব্র্যাকের মানবিক সহায়তা প্রদান সরকার আপনাদের পাশে আছে, আমরা আপনাদের খোঁজখবর নিচ্ছি- জেলা প্রশাসক জাহেদুর রহমান কাউখালীতে প্রান্তিক চাষীদের মাঝে সার, বীজ ও নারকেল চারা বিতরণ
দুই গ্রুপের রশি টানাটানিতে ৪০ বছরেও নির্মান হয়নি ইউনিয়ন পরিষদের ভবন

দুই গ্রুপের রশি টানাটানিতে ৪০ বছরেও নির্মান হয়নি ইউনিয়ন পরিষদের ভবন

রিয়াদ মাহমুদ সিকদার, কাউখালী (পিরোজপুর) সংবাদদাতা॥

পিরোজপুরের কাউখালী উপজেলার ১নং সয়না রঘুনাথপুর ইউনিয়ন পরিষদের স্থায়ী ভবন না থাকায় কাঙ্খিত সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন ওই ইউনিয়নের সাধারণ মানুষ। স্থান নির্ধারণ নিয়ে দুই গ্রুপের রশি টানাটানির কারণে ৪০ বছরেও হয়নি ইউনিয়ন পরিষদ ভবন নির্মাণ। সংশ্লিষ্ট ইউনিয়নের চেয়ারম্যান এলিজা সাঈদ জানান, আমার আগে তার স্বামী বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান আবু সাইয়েদ দু’বারে আট বছর ধরে এই ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ছিলেন। তিনি যখন যেখানে যেতেন সেখানেই পরিষদের কাজ সম্পন্ন করতেন । ইউনিয়নের স্থায়ী কোনো কার্যালয় নেই। ইউনিয়ন পরিষদের প্রথম কার্যক্রম শুরু হয়েছিল রঘুনাথপুর গ্রামের একটি ভবনে। তা আজ পরিত্যক্ত। যার ফলে গ্রাম্য আদালত, ডিজিটাল সেন্টারের কার্যক্রম চলছে না। শিক্ষা, স্বাস্থ্য, কৃষিসহ মানুষের মৌলিক চাহিদা মেটাতে ১৮টি দফতরের যেসব সেবা ইউনিয়ন পরিষদে পাওয়ার কথা, ভবন না থাকার কারণে সেসব সেবা সাধারণ মানুষ সঠিকভাবে পাচ্ছেন না। নদীভাঙনে ইউনিয়নের এক-তৃতীয়াংশ মানুষ ভূমিহীন হয়েছেন। চেয়ারম্যান বলেন, ধাবরী গ্রামের আবদুর রহমান সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের উত্তর পাশে সুলতান সরদার ৭২ শতাংশ জমি ইউনিয়ন পরিষদ ও ভূমি অফিসের নামে প্রদান করেছেন। এখন সেখানে ইউনিয়ন পরিষদ ভবন নির্মাণ করা হবে। উপজেলার বদ্বীপ খ্যাত এ ইউনিয়নের পূর্বদিকে সন্ধ্যা আর পশ্চিমে কালীগঙ্গা নদী। মাঝখানে ১৫ বর্গকিলোমিটারের বদ্বীপখ্যাত জনপদ সয়না রঘুনাথপুর। স্থায়ী ইউনিয়ন পরিষদ ভবন না থাকায় প্রায় ৪০ বছর ধরে দুর্ভোগ পিছু ছাড়ছে না এ ইউনিয়নবাসীর। নির্বাচিত পরিষদ, দাফতরিক কর্মচারী, ডিজিটাল সেন্টারের সরঞ্জাম- সবই আছে। শুধু নেই এসব মালামাল রাখার স্থায়ী ইউনিয়ন পরিষদ ভবন।
ইউনিয়নের বাসিন্দা ডাক্তার মাহবুবুর রহমান বলেন, নাগরিক সনদপত্র বা জন্মনিবন্ধন পেতে হেঁটে ছুটতে হয় ইউনিয়নের বেতকা বা সোনাকুর থেকে মেঘপাল গ্রাম পর্যন্ত। তাতে ১০-১৫ কিলোমিটার পথ পাড়ি দিতে হয়। ০৫ নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মো. নাছির উদ্দিন বলেন, সব কিছু যখন অনলাইন ডিজিটালে চলছে ঠিক সেই সময় আমাদের একটি ইউনিয়ন পরিষদ ভবন পর্যন্ত নেই। স্বাধীনতার পর থেকে রঘুনাথপুর হাইস্কুলের দক্ষিণ পার্শ্বে ইউনিয়ন পরিষদের কার্যক্রম পরিচালিত হয়ে আসছিল। ওই ভবনটি অনেক পুরনো জরাজীর্ণ হওয়ায় ১৯৮০ সালে অস্থায়ী ভিত্তিতে ইউনিয়নের দক্ষিণ প্রান্ত মেগপাল বাজারে কৃষি অধিদফতরের একটি সিড স্টোর ভবনে শুরু হয়। যা বর্তমানে সম্পূর্ণ ব্যবহারের অনুপযোগী ও ঝুঁকিপূর্ণ। নতুন ভবন নির্মাণের জন্য সরকারি বিধি মোতাবেক নির্ভেজাল ৫২ শতাংশ জমি ইউনিয়ন পরিষদের নামে থাকলেই ভবন নির্মাণের বরাদ্দ পাওয়া সম্ভব। ইউনিয়নের দুই-তৃতীয়াংশ মানুষের দাবি অনুযায়ী পূর্বের জায়গা নুরুল হক প্রদান করেন। অন্যদিকে সুলতান সরদার মেগপালে যে জায়গা দিয়েছেন সেটা নির্ভেজাল না বলে দাবি করেন অন্য পক্ষ। যার তদন্তভার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা দফতরে চলমান।

ইউপি সচিব মো. শাহীন কাজী বলেন, স্থায়ী ভবন না থাকায় কৃষি বিভাগের পরিত্যক্ত ভবনে ধাবড়ী বাজারে অস্থায়ীভাবে ইউনিয়ন পরিষদের কার্যক্রম পরিচালিত হয়ে আসছে। বীজ গুদামে ডিজিটাল সেন্টারের কম্পিউটার-ল্যাপটপ রাখতে হচ্ছে। স্যাঁত স্যাঁতে পরিবেশে ওইসব সরঞ্জাম ও গুরুত্বপূর্ণ কাগজপত্র নষ্ট হচ্ছে। ধাবড়ি এলাকায় পরিষদের জমি রয়েছে। সেখানে গ্রাম আদালতের পরিচালনার জন্য পরিষদের অর্থায়নে একটি কার্যালয় নির্মাণের কাজ শুরু করা হয়েছে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোছা. খালেদা খাতুন রেখা জানান, স্থান নির্ধারণ নিয়ে স্থানীয় পর্যায়ে অভিযোগ রয়েছে, যা সমাধান হলে দ্রুত সময়ের মধ্যেই ভবন নির্মাণের জন্য ব্যবস্থা করা হবে।

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন




© All rights reserved © 2019 pirojpursomoy.com
Design By Rana
error: Content is protected !!