বুধবার, ১৭ Jul ২০২৪, ০২:৪৭ পূর্বাহ্ন

সর্বশেষ সংবাদ :
কাউখালীতে বিআরডিবি অফিসের জনবল সংকট, কাঙ্খিত সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে ভুক্তভোগী জনগণ কাউখালীতে ৪০ পিস ইয়াবাসহ দুই মাদক ব্যবসায়ী আটক কাউখালীতে কৃষকদের মাঝে ফলের চারা বিতরণ বালু বোঝাই বাল্ক‌হেডের ধাক্কায় ব্রিজ ভে‌ঙে খা‌লে এক বছরেও পুণ:নির্মাণ হয়নি নাজিরপুরে যে কারনে মাকে কুপিয়ে হত্যা করলো ছেলে ৯ বছরের সাজার জন্য ৩৫ বছর পালিয়েও শেষ রক্ষা হলো না স্কুল ছাত্রী অপহরণের ৩৩ দিন হলেও এখন পর্যন্ত উদ্ধার করা যায়নি কাউখালীতে ৪টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ইসলাম শিক্ষার ক্লাস নিচ্ছেন হিন্দু শিক্ষক পিরোজপুরে বিশ্ব জনসংখ্যা দিবস উপলক্ষে বিশেষ সেবা কার্যক্রম উদ্বোধন কাউখালী সরকারি বালিকা বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের কক্ষে দেখা গেল সাপ কাউখালী উপজেলা অস্থায়ী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেই চিকিৎসক নেই বেড, রোগীদের দুর্ভোগ চরমে কাউখালীতে ঘূর্ণিঝড় রিমালে ক্ষতিগ্রস্থদের মাঝে হাইজিন কিট বিতরন পিরোজপুরে দুঃস্থ ও অসহায় পরিবারের মাঝে ঢেউটিন ও নগদ অথের্র চেক বিতরণ কাউখালীতে জমি জমা নিয়ে সংঘর্ষে আহত ৪, গ্রেপ্তার ৪ নেছারাবাদে রিমালে ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে ব্র্যাকের মানবিক সহায়তা প্রদান সরকার আপনাদের পাশে আছে, আমরা আপনাদের খোঁজখবর নিচ্ছি- জেলা প্রশাসক জাহেদুর রহমান কাউখালীতে প্রান্তিক চাষীদের মাঝে সার, বীজ ও নারকেল চারা বিতরণ ভাণ্ডারিয়ায় পিকআপের ধাক্কায় ২ পথচারী নিহত, আহত ৪ সকলে মিলে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে কাজ করলে এলাকার শতভাগ উন্নয়ন করা সম্ভব- মহিউদ্দিন মহারাজ এমপি ভান্ডারিয়ায় বঙ্গবন্ধু ও বঙ্গমাতা ফুটবল টুর্নামেন্টের ফাইনাল অনুষ্ঠিত
প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে বোনকে ছুরিকাঘাতে খুন করে বড়ভাই

প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে বোনকে ছুরিকাঘাতে খুন করে বড়ভাই

কিশোরগঞ্জের ইটনায় বাবার বাড়িতে স্বামীর পাশে ঘুমন্ত অবস্থায় আকলিমা আক্তার (২০) নামে এক গৃহবধূকে উপর্যুপরি ছুরিকাঘাতে খুন হওয়ার রহস্যের জট খুলেছে।

পুলিশের তদন্তে বেরিয়ে এসেছে ঘটনার আদ্যোপান্ত। পুলিশের হাতে গ্রেপ্তারের পর আঁততায়ী বড় ভাই মোতাহার (৩০) বোন হত্যার নৃশংস বর্ণনা দিয়েছে। প্রতিপক্ষকে শায়েস্তা করতে আদরের ছোটবোনকে উপর্যুপরি ছুরিকাঘাতে সে হত্যা করে। এজন্যে বোন ও ভগ্নিপতিকে পানিতে মিশিয়ে কৌশলে ঘুমের ওষুধ খাইয়ে ঘুমাতে পাঠায়। এর আগে সে ঘরে বোন-ভগ্নিপতির খাট বরাবর বাইরে থেকে শাবল দিয়ে সিঁধ কাটে, যেন মনে হয় সিঁধ কেটে ঘাতক ঘরে ঢুকে বোনকে হত্যা করেছে। পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদ ও আদালতে দেয়া ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে এসব বর্ণনা দিয়েছে ভগ্নিহন্তারক মোতাহার। বুধবার দুপুরে কিশোরগঞ্জের সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মো. রফিকুল বারী তাঁর খাসকামরায় ঘাতক মোতাহারের ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি রেকর্ড করেন। ইটনা থানার ওসি মোহাম্মদ মুর্শেদ জামান বিপিএম এবং মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ইটনা থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) আহসান হাবীব আদালতে মোতাহারের ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। ঘাতক মোতাহার ইটনা উপজেলার রায়টুটী ইউনিয়নের কানলা গ্রামের মৃত ইছহাক আলীর ছেলে।
মোতাহারের স্বীকারোক্তির বরাত দিয়ে ইটনা থানার ওসি মোহাম্মদ মুর্শেদ জামান বিপিএম জানান, নিহত আকলিমা আক্তারকে একই গ্রামের আব্দুর রহমানের ছেলে মাসুক মিয়া বিয়ে করতে চেয়েছিল। মাসুক মিয়া আকলিমা আক্তারকে বিয়ের প্রস্তাবও দেয়। কিন্তু আকলিমার পরিবার এই বিয়ের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করে। এতে মাসুক ক্ষিপ্ত হয়ে জোরপূর্বক আকলিমাকে বিয়ের হুমকি দেয়। এ পরিস্থিতিতে উপায় না দেখে বছর খানেক আগে তাড়াইল উপজেলার বরুহা বড়হাটি গ্রামে ফুফাতো ভাই জিন্নত আলীর সঙ্গে আকলিমাকে বিয়ে দেয় তার পরিবার। এর জের ধরে গত বৈশাখ মাসে ধান কাটা অবস্থায় মাসুক মিয়া তার লোকজন নিয়ে আকলিমার পরিবারের সদস্যদের উপর হামলা চালায় এবং আকলিমার ভগ্নিপতি বকুলকে লোহার রড দিয়ে পিটিয়ে বাম পা ভেঙ্গে পঙ্গু করে দেয়। হামলাকারীরা প্রভাবশালী হওয়ায় তাদের বিরুদ্ধে মামলা করতেও ভয় পায় আকলিমার পরিবার। এ ঘটনার পর আকলিমার বড় ভাই মোতাহার ঢাকায় রিক্সা চালানোর জন্য চলে যায়। গত কোরবানীর ঈদের আগে সে মাসুক মিয়াকে শায়েস্তা করার পরিকল্পনা করে। এজন্যে ঢাকা থেকে বাড়িতে আসার সময় সে ঘুমের ওষুধ সাথে নিয়ে আসে। ঈদের পর মোতাহার ছোট বোন আকলিমার বাড়িতে যায় এবং বোন জামাই জিন্নত আলীকে তাদের বাড়িতে আসার জন্য দাওয়াত করে। গত ১৪ই আগস্ট বিকালে আকলিমা ও তার স্বামী জিন্নত আলী কানলা গ্রামে মোতাহারদের বাড়িতে আসে। পরদিন ১৫ই আগস্ট রাত ৯টার দিকে মোতাহার কৌশলে একটি জগে পানির মধ্যে ঘুমের ঔষধ মিশিয়ে আকলিমা এবং জিন্নত আলীকে সাথে নিয়ে রাতের খাবার খেতে বসে। সে কৌশলে আকলিমা এবং জিন্নতকে ঘুমের ঔষধ মেশানো জগের পানি খাওয়য় এবং রাত ১০টার দিকে বসতঘরের মাঝখানের কক্ষে লোহার খাটের ওপর তাদের ঘুমাতে দেয়। রাত ১১টার দিকে মোতাহার ঘরে থাকা একটি শাবল নিয়ে ঘর থেকে বের হয়ে আকলিমা এবং জিন্নত যে খাটের উপর ঘুমিয়েছিল সে খাটের নিচে বাইরে দিয়ে সিঁধ কেটে আবার ঘরে চলে যায়। রাত সাড়ে ১২টার দিকে মোতাহার ঘরে থাকা চাকু দিয়ে সজোরে আকলিমার বুকের বাম পাশে পর পর দুইটি আঘাত করে। এ সময় আকলিমা আর্তচিৎকার করে ওঠলে চাকুটি বিছানার উপর ফেলে দ্রুত ঘর থেকে বাইরে চলে যায় মোতাহার। এ সময় ঘরের ভেতর থাকা সবাই ঘুম থেকে জেগে ওঠে আকলিমাকে বাঁচানোর জন্য ঘর থেকে ধরাধরি করে বারান্দায় নিয়ে আসে। এ সময় মোতাহারও ঘরের ভেতর ঢুকে বোনকে ধরাধরি কওে এবং বারান্দায় আনার পর আকলিমার মাথায় পানি ঢালে। এর কিছুক্ষণের মধ্যেই আকলিমা মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে।
এদিকে মোতাহার এ রকম নৃশংস হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটিয়ে এর দায় প্রতিপক্ষ মাসুক মিয়ার উপর চাপানোর চেষ্টা করে। কিন্তু পুলিশের কুশলী তদন্তে বেরিয়ে আসে প্রকৃত ঘটনা। গত রোববার (১৬ই আগস্ট) দুপুরে লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের পাঠানোর সময়েই পুলিশ নজরবন্দি করে ভাই মোতাহারকে। সোমবার ময়নাতদন্ত শেষে লাশ দাফনের পর পরদিন মঙ্গলবার দুপুরে নিহত আকলিমা আক্তারের মা আরজুদা বেগম বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামা কয়েকজনকে আসামি করে ইটনা থানায় মামলা দায়ের করেন। এই মামলায় মোতাহারকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করে পুলিশ। আটকের পর পুলিশের জেরার মুখে পড়ে সত্য প্রকাশ করে মোতাহার। জানায়, প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতেই সে এই নৃশংস হত্যাকাণ্ডের ছক কষেছিল। পরে বুধবার দুপুরে মোতাহারকে কিশোরগঞ্জের আদালতে পাঠানোর পর হত্যাকাণ্ডের বিবরণ দিয়ে সে আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়।

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন




© All rights reserved © 2019 pirojpursomoy.com
Design By Rana
error: Content is protected !!