মঙ্গলবার, ১১ মে ২০২১, ০৪:২৩ অপরাহ্ন

সর্বশেষ সংবাদ :
ঈদে বাড়ি ফেরার পথে পদ্মার চরে সন্তান জন্ম দিলেন বরিশালের সুমা ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় তাণ্ডবের ঘটনায় সরাইল থানার ওসির বদলি মঠবাড়িয়ার ওসি সাহেব পারবেন তো কথা রাখতে ! মঠবাড়িয়ায় থানায় নবাগত ওসির যোগদান মঠবাড়ীয়ায় প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে দুস্থ পরিবারের মাঝে নগদ অর্থ বিতরণ মঠবড়িয়ায় বেগম খালেদা জিয়ার রোগ মুক্তি কামনায় দোয়া ও ইফতার মাহফিল রাজাপুরে দুঃস্থদের মাঝে ঈদবস্ত্র বিতরন করেছেন ইঞ্জিনিয়ার আবুল কাসেম সীমান্ত ভান্ডারিয়ায় ঈদের কেনাকাটায় মানা হচ্ছে না স্বাস্থ্যবিধি ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ট্রাকচাপায় সিএনজি আরোহি  নিহত আহত-৩ মঠবাড়িয়া থানার ওসি মাসুদুজ্জামানের বিদায়ী সংবর্ধনা মঠবাড়িয়ায় রেড ক্রিসেন্ট‘র উদ্যোগে নগদ অর্থ ও বীজ বিতরণ ফাঁকা বাড়িতে ইফতার দিতে এসে রোজাদার গৃহবধূকে ধর্ষণ লালমাইয়ে প্রবাসীর স্ত্রী নিখোঁজ ভান্ডারিয়ায় নবাগত ইউএনও’র সাথে সাংবাদিকদের মতবিনিময় মঠবাড়িয়ায় ব্যাংকের উদ্যোগে রমজানের উপহার সামগ্রী বিতরণ ২শ টাকার বাজার করে ৩শ টাকার হিসাব দেওয়ায় শরণখোলায় জামাইকে ত্যাজ্যপুত্র করলো শশুর! পিরোজপুরে টাউট রফিকুল ইসলামের কাছে এক অসহায় পরিবার জিম্মি ও পালিয়ে বেড়াচ্ছেন বংশা‌লে রিকশাওয়া‌লা‌কে নির্যাতনকারী ব্য‌ক্তি‌কে আটক কর‌লো পু‌লিশ মঠবাড়িয়ায় দূর্বৃত্তের দেয়া চেতনা নাশকে ৬ জন অচেতন ‘ সুরক্ষা ও নিরাপত্তা সাংবাদিকদের প্রত্যাশা’
‘ সুরক্ষা ও নিরাপত্তা সাংবাদিকদের প্রত্যাশা’

‘ সুরক্ষা ও নিরাপত্তা সাংবাদিকদের প্রত্যাশা’

‘ সুরক্ষা ও নিরাপত্তা সাংবাদিকদের প্রত্যাশা’গণমাধ্যম ও গণমাধ্যমের জাতীয় প্রাতিষ্ঠানিক ভিত্তি, উন্নয়ন এবং গণমাধ্যমের প্রতি গনমানুষের প্রত্যাশা। সাংবাদিকতাঃ- সাংবাদিকতা একটি মহান পেশা, এই পেশায় সম্মানের পাশাপাশি আছে রোমান্স। রয়েছে ভালোলাগা, ভালোবাসা সর্বোপরি স্বাধীনতা। সাংবাদিকতা কোন সাধারণ পেশা নয়। আছে নেশাও এই নেশায় যেমন রয়েছে অধিক সম্মান তেমনি রয়েছে জীবনের মারাত্মক ঝুঁকি। এই নেশাটা হচ্ছে দেশের জন্য, দেশের মানুষের জন্য পজিটিভ কিছু করার নেশা। আমার মনেহয় একজন চিকিৎসক যেভাবে মানুষের সেবা করতে পারেন, তার চেয়ে অনেক বেশি সেবা করতে পারেন একজন দেশপ্রেমিক সাংবাদিক। আর এই কারণে সংবাদপত্রকে সমাজের দর্পণ আর সাংবাদিককে জাতির বিবেক বলা হয়। যে সংবাদই হোক না কেন তা হবে বস্তুনিষ্ঠ ও নিরপেক্ষ, যিনি সাংবাদিকতার মতো মহান পেশায় নিজেকে নিয়মিত করতে চান তার অধ্যবসায় সততা, সহনশীলতা ও নিরপেক্ষতা থাকা আবশ্যক, তাকে বর্জন করতে হবে লোভ লালসা। সামাজিক অঙ্গিকার নিয়ে সাংবাদিকতা সমাজ,রাষ্ট্র এমনকি মানবসভ্যতার অগ্রযাত্রায় প্রতিনিয়ত প্রহরী বা পর্যবেক্ষকের ভূমিকায় প্রতিহত হয়। সাংবাদিকতাকে রাষ্ট্রের চতুর্থ স্তম্ভের কার্যক্রম হিসাবে মুল্যায়ন করা হয়।
ফি বছরগুলোয় সাংবাদিকতা পেশা সারাবিশ্বময় ঝুঁকিপূর্ণ পেশাগুলোর মধ্যে অন্যতম। আমাদের দেশে সে ঝুঁকি ধীরে ধীরে বাড়ছে। সাংবাদিক হয়রানি, সাংবাদিক নির্যাতন, সাংবাদিক হত্যা, সাংবাদিকের বিরুদ্ধে মামলা, হুমকি ধামকি তো নিত্যনৈমিত্তিক ব্যাপার হয়ে দাঁড়িয়েছে। পাশাপাশি গনমাধ্যমকে কুক্ষিগত করে রাখার প্রবণতাও বাড়ছে। বাড়ছে হলুদ অপসাংবাদিকতা। বিভিন্ন কারনে গনমাধ্যম ও গনমাধ্যমকর্মীদের প্রতি গনমানুষের আস্থাও কমে আসছে। সাংবাদিকদের মধ্যে অনৈক্য, জেলা উপজেলাগুলোতে একাধিক প্রেসক্লাব, সাংবাদিক সংগঠন রয়েছে। অথচ তাদের মধ্যে বিভেদ, মতানৈক্য, একে অপরের বিষাদগার করার মত বিষয় গুলো জটিল আকার ধারন করেছে। স্বাধীনতার ৫০ বছরে এসে সমাজের দর্পণ, জাতির বিবেক ও রাষ্ট্রের ৪র্থ স্তম্ভ গনমাধ্যম ও গনমাধ্যমকর্মীদের জাতীয়ভাবে প্রাতিষ্ঠানিক রুপভিত্তি ও উন্নয়নের কিছুই হয়নি। বর্তমান সময়ে সাংবাদিক নিরাপত্তা, পেশাগত ঝুঁকি হ্রাস,সাংবাদিক মানোন্নয়ন, সাংবাদিকদের আর্থিক সুরক্ষা, পেশাগত চাকুরী সুরক্ষার মত গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলো উপেক্ষিত। জাতীয় পর্যায়ে বেশকিছু সংগঠন থাকলেও কার্যত রাজধানীর বাইরে কাউকে সাংবাদিক মনেই করে না। সংগঠনগুলো বিভিন্ন দল উপদল ও মতের ভিন্নতা নিয়ে যে যার মত ছুটছে। সাংবাদিক সংগঠনগুলো জাতীয় পরিচয় বহন করে আসলেও বাস্তবে জেলা উপজেলা পর্যায়ের ক্লাবগুলোর মত নির্দিষ্ট শ্রেণী ও গোষ্ঠীর মধ্যে সীমাবদ্ধ। জাতীয় বৃহৎ পরিসরে কাজ করার কথা হলেও বাস্তবে তা কথার মধ্যেই সীমাবদ্ধ। যার ফলে কলম সৈনিক ও কলম যোদ্ধাদের যে কোন ছোটখাটো সমস্যাতেও কলম ছেড়ে রাজপথের লড়াকু সৈনিক হতে হয়, দাবীর জন্য রাজপথে নামতে হয়। তারপরও সমাধান সহজে আসে না। আমি ভাবতেই পারি না সংবাদকর্মী ও সাংবাদিক দের নিজেদের পেশাগত কারনে রাস্তায় আসতে হবে, কর্মসূচী ও প্রতিবাদ মানববন্ধন করতে হবে যেখানে এক কলমের খোচায় হাজারো সমস্যা সমাধান হয়, জনগন জাগ্রত হয়, গনমাধ্যম সরকারের ছায়া সরকার হয়। অথচ সাংবাদিকদের নিজেদের বিষয়ে কলম লিখলেও নজরে আসে না, ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সুবাদে ছবি কথা রিপোর্ট তখন কানেও ঢুকে না। আশ্চর্য এক পেশায় পরিণত হতে চলেছে সাংবাদিকতা।
এই সাংবাদিকতার এখন পর্যন্ত নেই কোন নীতিমালা, নেই কোন রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি, এমনকি নুন্যতম ক্যাটাগরী ধরে সাংবাদিক নিবন্ধন টুকুও সম্পন্ন হয়নি। দেশে প্রতিটি দিবস পালিত হয়, গনমাধ্যমের ভাগ্যে সেটিও এখনও জুটেনি। যুবদের যুবমন্ত্রনালয়, সামাজিক সংগঠন গুলোর সমাজ সেবা অধিদফতর, কৃষি ও কৃষকদের কৃষি অধিদফতর, পুলিশদের পুলিশ দপ্তর সবই আছে কিন্তু সাংবাদিকদের জন্য এতদিনেও একটি রাষ্ট্রীয় দপ্তর গঠিত হলো না। হলো না, হয় নাই, পাই নাই দাড়ানোর জায়গা নাই নাই নাই বলতে গেলে এর শেষ হবে না। তাই আমাদের প্রয়োজন উপলব্ধি, প্রয়োজন পরিবর্তন, প্রয়োজন যুগোপযোগী নীতিমালা প্রনয়ণ, প্রয়োজন সুরক্ষা, দরকার রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি আর তার জন্য গুরুত্বপূর্ণ হলো সাংবাদিক ঐক্য এবং সাংবাদিকদের পেশাগত ঐক্যমতের সাংগঠনিক লিডারশীপ বা সাংগঠনিক নেতৃত্ব।
বাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিক ফোরাম প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে সারাদেশের সাংবাদিক সমাজকে ঐক্যবদ্ধ করার মধ্য দিয়ে সাংবাদিক সংশ্লিষ্ট ১৪ দফা দাবীকে সামনে রেখে কাজ করে আসছে। সাংবাদিক হিসেবে পেশাগত সমস্যা, সাংবাদিক সমাজের সামষ্টিক সমস্যা, গনমাধ্যমকে রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতির মাধ্যমে স্থায়ী প্রাতিষ্ঠানিক রুপ দেয়া, সাংবাদিক ও গনমাধ্যমের প্রত্যাশা এবং সাংবাদিক ও গনমাধ্যমের কাছে গনমানুষের প্রত্যাশা সহ সাংবাদিক নির্যাতন প্রতিরোধের সকল উপাদান নিয়েই এই সংগঠন নিরলসভাবে কাজ করে ধীরে ধীরে দেশের সকল সাংবাদিকের আশা আকাঙ্খার ও নিরাপত্তার কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত হয়েছে।
আসুন ; আমরা ঐক্যবদ্ধ হই। দেশ ও জনগনের স্বার্থে গনমাধ্যমকে জাতীয় প্রাতিষ্ঠানিক রুপ দিতে বিএমএসএফের মাধ্যমে জনমত তৈরী করি। সাংবাদিক পেশা কে তার যথাযোগ্য মর্যাদায় স্থায়ীরুপ দিতে একসাথে কাজ করি। সেই সাথে দাবী তুলি ১ লা মে থেকে ৭ই মে জাতীয় গনমাধ্যম সপ্তাহকে রাষ্ট্রীয়ভাবে স্বীকৃতি দেয়া হোক। গণমাধ্যম সপ্তাহ সফল হোক।
আবু জাফর সোহেল রানা
সভাপতি, কুড়িগ্রাম জেলা শাখা,
উপ- প্রচার সম্পাদক, জাতীয় নির্বাহী কমিটি, বাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিক ফোরাম ( বিএএমএসএফ)।

নিউজটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন










© All rights reserved © 2019 pirojpursomoy.com
Design By Rana