বৃহস্পতিবার, ১৩ Jun ২০২৪, ০৭:৩১ অপরাহ্ন

সর্বশেষ সংবাদ :
মঠবাড়িয়া উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে বিজয়ী বায়জিদ কাউখালীতে মাদ্রাসার ছাত্রের আত্মহত্যা কাজল সভাপতি- নুর উদ্দিন সম্পাদক পিরোজপুর সাংবাদিক ইউনিয়নের কমিটি গঠন ভাণ্ডারিয়ায় গৃহবধূর লাশ উদ্ধার, স্বামী পলাতক ভান্ডারিয়ায় ঘূর্ণিঝড় রেমালে ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে সংসদ সদস্য মহিউদ্দিন মহারাজের খাদ্য সহয়তা বিতরণ কাউখালীতে ত্রাণ না পাওয়া মহিলা মেম্বারের পরিবারের উপর হামলা। নিহত-১ গ্রেফতার-২ কাউখালিতে ঘূর্ণিঝড় রিমেলে বিধ্বস্ত জোলাগাতি মাদ্রাসা , খোলা আকাশের নিচে পাঠদান ভান্ডারিয়ায় ঘূর্ণিঝড়ে ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে শক্তি ফাউন্ডেশনের সহায়ত প্রদান কাউখালীতে বিভিন্ন কর্মসূচির মধ্য দিয়ে শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের শাহাদত বার্ষিকী পালন করা হয় মঠবাড়িয়ায় চেয়ারম্যান পদের প্রার্থিতা বাতিলের পরও সভা : কর্মীদের বাঁশের লাঠি নিয়ে প্রস্তুতির নির্দেশ মঠবাড়িয়ার চেয়ারম্যান প্রার্থী রিয়াজের প্রার্থিতা বাতিল কাউখালীতে উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতিসহ ৪ প্রার্থী জামানত হারান কাউখালীতে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আবু সাঈদ মিয়া পুনরায় উপজেলা চেয়ারম্যান নির্বাচিত ভান্ডারিয়ায় মিরাজুল ইসলামের জন্মদিন উপলক্ষে দোয়া অনুষ্ঠান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে সকল ষড়যন্ত্র রাজপথে মোকাবেলা করতে হবে — যুবলীগ চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস পরশ ভান্ডারিয়ায় শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা ভান্ডারিয়া উপজেলা যুবলীগের বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত ভান্ডারিয়ায় মৎস্যজীবিদের মাঝে জাল ও বকনা বাছুর বিতরণ গ্রাম বাংলার ঐতিহ্য কাচারি ঘর বিলুপ্তির পথে ভান্ডারিয়া উপজেলা নির্বাচনে বিনা প্রতিদ্বন্দীতায় চেয়ারম্যানসহ দুই ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচিত
মালয়েশিয়ায় কোভিড-১৯ চেকের জন্য খুঁজছে ২ হাজার রোহিঙ্গাকে!

মালয়েশিয়ায় কোভিড-১৯ চেকের জন্য খুঁজছে ২ হাজার রোহিঙ্গাকে!

প্রায় ২,০০০ রোহিঙ্গা পুরুষকে খুঁজে বের করার জন্য পদক্ষেপ নিয়েছে মালয়েশিয়া সরকার। যারা দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়াজুড়ে কোভিড-১৯ মামলায় বড় ধরনের ঘটনা ঘটিয়েছিল, এমন একটি ধর্মীয় সমাবেশে অংশ নিয়েছিল বলে, একটি সুরক্ষা সূত্র এবং অন্য দু’জন লোক রয়টার্সকে জানিয়েছে।

মিয়ানমার থেকে পালিয়ে যাওয়ার পরে মালয়েশিয়ায় এক লাখের বেশি রোহিঙ্গা বসবাস করলেও তারা অবৈধ অভিবাসী হিসেবে বিবেচিত হয়। রোহিঙ্গা সম্প্রদায়ের অন্যান্য সূত্র জানিয়েছে, তাদের অবস্থা সম্ভবত তাদের অনেকে ভাইরাসটির পরীক্ষা করার জন্য তাদের শনাক্ত করতে নারাজ হতে পারে।
রোহিঙ্গাদের জন্য মালয়েশিয়ার অনুসন্ধান সরকারি কাগজপত্রবিহীন এবং কর্তৃপক্ষের সতর্কতা ছাড়াই বসবাসকারী সম্প্রদায়ের মধ্যে ভাইরাসগুলো ট্র্যাক করার চেষ্টা করা সরকারদের জন্য চ্যালেঞ্জ তুলে ধরেছে।

একটি সূত্র জানিয়েছে, গত মাসের শেষদিকে কুয়ালালামপুরের উপকণ্ঠে একটি মসজিদে এই ধর্মীয় সমাবেশে মিয়ানমার থেকে আসা রোহিঙ্গা মুসলমানসহ প্রায় ১৬,০০০ লোক উপস্থিত ছিলেন।

পাশাপাশি রোহিঙ্গা, এশিয়াজুড়ে প্রায় ১,০০০ মুসলমান অংশ নিয়েছিল।

দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার প্রায় ৬০০০০টি কোভিড-১৯ এর সমাগমের সঙ্গে যুক্ত হয়েছে, মালয়েশিয়ায় ৫১৩, ব্রুনাইয়ে ৬১১, কম্বোডিয়ায় ২২, কমপক্ষে সিঙ্গাপুরে পাঁচটি এবং থাইল্যান্ডের দুটি।

সব মিলিয়ে মালয়েশিয়ায় ৯০৯০টি ভাইরাস আক্রান্ত হয়েছে।

মালয়েশিয়ার কর্তৃপক্ষ অংশগ্রহণকারীদের খোঁজছে। কিন্তু তারা বলেছে, এর মাঝে প্রায় ৪,০০০ খুঁজে পায়নি এখনো।

‘তারা মালয়েশিয়াজুড়ে তাদের পরিবারগুলোতে ফিরে গেছে, তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করা আমাদের পক্ষে কঠিন হয়ে পড়েছে। অনেকে উপস্থিত থাকার কথা স্বীকার করে ভয় পান, তারা ভয় করছেন যে তারা কর্তৃপক্ষের সঙ্গে সমস্যায় পড়বেন,’ এক সূত্রের সঙ্গে যারা কাজ করেছেন তারা, শরণার্থী সম্প্রদায়।

‘সরকার উদ্বিগ্ন যে তারা এগিয়ে না এলে সংক্রমণ আরও ছড়িয়ে যেতে পারে।’

সুরক্ষা সূত্র জানায়, সরকার নিখোঁজ অংশগ্রহণকারীদের খোঁজ করতে পুলিশ অপরাধ তদন্ত বিভাগকে বলেছিল।

পুলিশ কোনও মন্তব্য করতে অস্বীকার করেছে এবং প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের অধীনে মালয়েশিয়ার জাতীয় সুরক্ষা কাউন্সিলকে জিজ্ঞাসাবাদ করার নির্দেশ দিয়েছে। তাৎক্ষণিকভাবে মন্তব্য করার জন্য পৌঁছানো যায়নি।

মসজিদ জড়িত হওয়ার সঙ্গে জড়িত মামলার স্পাইকের পরে বুধবার থেকে ভাইরাসটি সংক্রামিত হওয়ার জন্য মালয়েশিয়া ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞাগুলো কার্যকর করেছে এবং অপ্রয়োজনীয় ব্যবসা বাণিজ্য দুটি সপ্তাহের জন্য বন্ধ করে দিয়েছে। এই সমাবেশে অংশ নেয়া এক ব্যক্তি এই সপ্তাহে ভাইরাসজনিত রোগ কোভিড-১৯ থেকে মারা যান।

অংশগ্রহণকারীরা বেশিরভাগ সময় তাদের চার দিনের ইভেন্টে মসজিদে ভিড় করে কাটায়, তবে কিছু রেস্তোরাঁ, শপিংমল এবং কুয়ালালামপুরের ল্যান্ডমার্ক পেট্রোনাস টুইন টাওয়ারে গিয়েছিলেন বলে রয়টার্সের সাক্ষাৎকারে যোগ দেয়া ব্যক্তিদের সঙ্গে এবং সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পোস্ট করা হয়েছে।

মালয়েশিয়ায় জাতিসংঘের শরণার্থী বিষয়ক হাইকমিশনার (ইউএনএইচসিআর) রয়টার্সকে শুনেছিল যে শরণার্থী এবং আশ্রয়প্রার্থীরা সমাবেশে উপস্থিত ছিল এবং সকল শরণার্থী এবং আশ্রয় প্রার্থী জনগোষ্ঠীকে সরকারে অন্তর্ভুক্ত করার লক্ষ্যে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে কাজ করছে।

ইউএনএইচসিআর মালয়েশিয়া এক ই-মেইলে বলেছিল, ‘শরণার্থী এবং আশ্রয়-সন্ধানকারীরা উল্লিখিত ধর্মীয় সমাবেশের মতো ইভেন্টে উপস্থিত ছিলেন কিনা তা বিবেচনা না করেই কোভিড-১৯ সংক্রমণের লক্ষণ উপস্থিত থাকলে তাদের চিকিত্সার পরামর্শ নেওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়।’

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় মন্তব্য করার অনুরোধের জবাব দেয়নি।

পেনাং-এ বসবাসরত এক রোহিঙ্গা জানিয়েছেন, তিনি প্রায় দুই ডজন রোহিঙ্গা বন্ধুবান্ধব নিয়ে মসজিদ অনুষ্ঠানে বেশ কয়েকদিন কাটিয়েছিলেন। তিনি বলেছিলেন যে তাদের কারওরই কোনও লক্ষণ দেখা যাচ্ছে না এবং তিনি হাসপাতালে গিয়েছিলেন তবে কোনও পরীক্ষা করা হয়নি।

“সবকিছু ঠিকঠাক, জ্বরে কিছুই নেই,” নির্মাণ শ্রমিক বলেছিলেন। রয়টার্স তার পরিচয় রক্ষার জন্য তার নামটি আটকাচ্ছেন।

মসজিদের নিকটে বসবাসরত এক বাংলাদেশি নির্মাণ শ্রমিক সালমান জানান, তিনি এবং আরও অনেক বাংলাদেশি সমাবেশে গিয়েছিলেন। সালমান জানিয়েছেন, তার ভাইরাস পরীক্ষা নেতিবাচক হলেও হাসপাতালে তাকে প্রতিদিন কল করে তার লক্ষণ রয়েছে কিনা তা যাচাই করে নেয়ার জন্য।

‘আমি যখন পরীক্ষার জন্য গিয়েছিলাম, তারা পাসপোর্ট বা ওয়ার্ক পারমিট বা কোনও দলিল চাইবে না। তারা কেবল আমার নাম, বয়স এবং ঠিকানা চেয়েছিল,’ সালমান বলেছিলেন, যিনি তার পুরো নাম দিতে অস্বীকার করেছিলেন।

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন




© All rights reserved © 2019 pirojpursomoy.com
Design By Rana
error: Content is protected !!