বুধবার, ১৯ Jun ২০২৪, ০৫:০৩ অপরাহ্ন

সর্বশেষ সংবাদ :
ভান্ডারিয়ায় বঙ্গবন্ধু ও বঙ্গমাতা ফুটবল টুর্নামেন্টের ফাইনাল অনুষ্ঠিত মঠবাড়িয়া উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে বিজয়ী বায়জিদ কাউখালীতে মাদ্রাসার ছাত্রের আত্মহত্যা কাজল সভাপতি- নুর উদ্দিন সম্পাদক পিরোজপুর সাংবাদিক ইউনিয়নের কমিটি গঠন ভাণ্ডারিয়ায় গৃহবধূর লাশ উদ্ধার, স্বামী পলাতক ভান্ডারিয়ায় ঘূর্ণিঝড় রেমালে ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে সংসদ সদস্য মহিউদ্দিন মহারাজের খাদ্য সহয়তা বিতরণ কাউখালীতে ত্রাণ না পাওয়া মহিলা মেম্বারের পরিবারের উপর হামলা। নিহত-১ গ্রেফতার-২ কাউখালিতে ঘূর্ণিঝড় রিমেলে বিধ্বস্ত জোলাগাতি মাদ্রাসা , খোলা আকাশের নিচে পাঠদান ভান্ডারিয়ায় ঘূর্ণিঝড়ে ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে শক্তি ফাউন্ডেশনের সহায়ত প্রদান কাউখালীতে বিভিন্ন কর্মসূচির মধ্য দিয়ে শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের শাহাদত বার্ষিকী পালন করা হয় মঠবাড়িয়ায় চেয়ারম্যান পদের প্রার্থিতা বাতিলের পরও সভা : কর্মীদের বাঁশের লাঠি নিয়ে প্রস্তুতির নির্দেশ মঠবাড়িয়ার চেয়ারম্যান প্রার্থী রিয়াজের প্রার্থিতা বাতিল কাউখালীতে উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতিসহ ৪ প্রার্থী জামানত হারান কাউখালীতে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আবু সাঈদ মিয়া পুনরায় উপজেলা চেয়ারম্যান নির্বাচিত ভান্ডারিয়ায় মিরাজুল ইসলামের জন্মদিন উপলক্ষে দোয়া অনুষ্ঠান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে সকল ষড়যন্ত্র রাজপথে মোকাবেলা করতে হবে — যুবলীগ চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস পরশ ভান্ডারিয়ায় শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা ভান্ডারিয়া উপজেলা যুবলীগের বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত ভান্ডারিয়ায় মৎস্যজীবিদের মাঝে জাল ও বকনা বাছুর বিতরণ গ্রাম বাংলার ঐতিহ্য কাচারি ঘর বিলুপ্তির পথে
যে কারণে নিউইয়র্কে করোনায় মৃত্যু বেশি

যে কারণে নিউইয়র্কে করোনায় মৃত্যু বেশি

নিউইয়র্ক সিটিসহ সমগ্র স্টেটে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর সংখ্যা অনেক বেশি। যুক্তরাষ্ট্রের ৫০ স্টেটে ৬ মে বুধবার রাত সাড়ে ১১টা পর্যন্ত মারা গেছে মোট ৭৪৭৯৯ জন। এরমধ্যে কেবলমাত্র নিউইয়র্ক স্টেটের রয়েছেন ২৫৯৫৬ জন। অর্থাৎ মোট মৃত্যুর ৩২% হলেন নিউইয়র্কের।

কেন এমন ঘটছে তার হদিস উদঘাটন করতে গিয়ে স্টেট গভর্নর এ্যান্ড্রু ক্যুমো জানতে সক্ষম হয়েছেন যে, ‘হাসপাতালে গুরুতর অবস্থায় আসা রোগীর ৬৬% বাসায় ছিলেন। তারা যথাযথ চিকিৎসা নেননি বা করোনা ভাইরাসের নৃশংসতাকে আমলে নিতে চাননি। এদের বয়স ৫১ বছরের উর্দ্ধে এবং তারা ডায়াবেটিস, হৃদরোগ, ক্যান্সার, উচ্চ রক্তচাপ এবং এ্যাজমায় ভোগছিলেন আগে থেকেই।’
বুধবার নিয়মিত প্রেসব্রিফিংকালে গভর্নর উল্লেখ করেন, ‘রোগীদের ১৮% এসেছেন নার্সিং হোম, কারাগার থেকে ১% এরও কম, গৃহহারা ২%, অন্য গ্রুপ থেকে আরো ২% । ৬৬% ছিলেন বাসায়। এটি খুবই দু:খজনক ঘটনা। বিস্ময়ে হতবাক হয়েছি তা জেনে।’ নিউইয়র্ক স্টেটের ১১৩টি হাসপাতালে চিকিৎসা নেয়া রোগীদের বিস্তারিত তথ্য সংগ্রহের পাশাপাশি ১৩০০ রোগির অংশগ্রহণে ৩দিনব্যাপী পরিচালিত এক জরিপে উদ্বেগজনক এ তথ্য উদঘাটিত হয় বলেও গভর্নর জানান।

টানা ৪৬ দিন চলছে নিউইয়র্ক স্টেটে লকডাউনের। সামাজিক দূরত্ব মেনে চলার ব্যাপারটি এখন আর কারো অজানা নেই। এবং এটি যে নিজেকে এবং পরিবারসহ গোপা সমাজকে করোনা থেকে রক্ষায় নেয়ামকের ভূমিকা পালন করছে সেটিও ইতিমধ্যেই সকলে নিশ্চিত হয়েছেন। একইভাবে বাসার বাইরে বের হলেই মাস্ক ব্যবহারের নির্দেশ বহাল রয়েছে। এমনি অবস্থায়ও প্রতি সপ্তাহে ২০ হাজার মানুষের বেশি হাসপাতালে আসছে করোনাভাইরাসের টেস্টিংয়ের জন্যে। গত সপ্তাহেও ৫ হাজারের অধিক রোগী হাসপাতালে এসেছেন। এরা কারা-প্রশ্ন স্টেট গভর্নরের। এমন কৌতুহলের অবসানেই চালানো হয় ঐ জরিপ। উপরোক্ত তথ্য উদঘাটন ছাড়াও গভর্নর নিশ্চিত হয়েছেন যে, প্রতি ৫ জন রোগীর ৪ জনই বেকার অথবা অবসর জীবন-যাপন করছিলেন। মাত্র ১৭% ছিলেন কর্মজীবী। গভর্নর বলেন, আমি ভাবছিলাম যে, নার্স, ডাক্তার, রেল-বাসের ড্রাইভার/শ্রমিকসহ দমকল বাহিনী অথবা পুলিশ বাহিনীর লোকই বেশী সংক্রমিত হয়েছেন এবং মৃতদের মধ্যেও তাদের সংখ্যাই অধিক হবে। কারণ, তারাইতো সরাসরি রোগীর সংস্পর্শে আসছেন। কিন্তু সে ধারণা সঠিক ছিল না। হাসপাতালে ভর্তি হওয়াদের সিংহভাগই বয়স্ক ছিলেন। প্রতি ৫ জনের ৩ জনেরই বয়স ৬০ বছরের অধিক।
জরিপ অনুযায়ী, এই স্টেটের মোট রোগীর ৫৭% ছিলেন নিউইয়র্ক সিটির। মোট রোগীর ৪৫% হচ্ছেন আফ্রিকান-আমেরিকান অথবা ল্যাটিনো। এসব রোগীর মাত্র ৩% হাসপাতালে এসেছেন বাস অথবা সাবওয়ে-তে। ৯৬% রোগীই আগে থেকে জটিল কিছু রোগে ভোগছিলেন। রোগীদের ৩৭% ছিলেন অবসর জীবন-যাপনকারি এবং ৪৬% ছিলেন বেকার। ‘এসব তথ্যে সহজেই অনুধাবন করা যায় যে, তারা কর্মরত ছিলেন না, সিটির বাইরেও যাননি, অধিকাংশই ম্যানহাটান, কুইন্স, ব্রুকলীন আর ব্রঙ্কস বরোতে বাস করছিলেন’-বলেন স্টেট গভর্নর।
জোন্স হপকিন্স ইউনিভার্সিটির সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, ৬ মে রাত সাড়ে ১১টা পর্যন্ত নিউইয়র্ক স্টেটে করোনায় মারা গেছে ২৫৯৫৬ । আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ৩ লাখ ৩৩ হাজার ৪৯১।

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন




© All rights reserved © 2019 pirojpursomoy.com
Design By Rana
error: Content is protected !!