শনিবার, ০২ মার্চ ২০২৪, ০৫:৩১ পূর্বাহ্ন

সর্বশেষ সংবাদ :
রাষ্ট্রীয় সম্মান নিয়ে কাউখালীর বীর মুক্তিযোদ্ধা হাবিবুর রহমানের শেষ বিদায় কাউখালীতে ব্রীজ নির্মান কাজ ৫ বছরে শেষ না হওয়ায় জনগনের ভোগান্তি চরমে কাউখালীতে জাতীয় স্থানীয় সরকার দিবস উপলক্ষে শোভাযাত্রা ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত স্মার্ট জাতীয় পরিচয়পত্র উন্নত ও স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ে তোলার একটি অংশ–মহিউদ্দিন মহারাজ (এমপি) মায়ের লাশ বাড়িতে রেখে এসএসসি পরীক্ষার হলে দুই ভাই ভান্ডারিয়ায় আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত বীর মুক্তিযোদ্ধা শাহাবুদ্দিন শাহ বাবুল মারা গেছেন পিরোজপুরে প্রতারণা মামলায় এহ্সান গ্রুপের অফিস সহকারী নাজমুল গ্রেফতার কাউখালীতে পানিতে ডুবে শিশুর মৃত্যু কাউখালীতে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনকে সামনে রেখে সম্ভাব্য প্রার্থীদের ব্যাপক প্রচারনা ভান্ডারিয়া বিহারী লাল মিত্র পাইলট মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের বার্ষিক ক্রীড়া নাজিরপুরে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় ২ শিক্ষার্থী নিহত কাউখালীতে উপজেলা প্রশাসন অনাবাদি জমি আবাদে আনার উদ্যোগ গ্রহণ করেছে কাউখালীতে অবৈধ জাল দিয়ে মাছ ধরার অপরাধে জেলেকে পাঁচ হাজার টাকা জরিমানা করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত কাউখালীতে অগ্নিকাণ্ডে বসতবাড়ি পুড়ে ছাই হয়ে গেছে সংসদে ইমাম-মুয়াজ্জিনের সম্মানজনক ভাতা দাবি মহিউদ্দীন মহারাজের যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের সংসদীয় স্থায়ী কমিটি সদস্য হয়েছে মহিউদ্দীন মহারাজ পিরোজপুরে উজ্জ্বল হত্যার মামলার প্রধান আসামি গ্রেপ্তার পিস্তল ঠেকিয়ে শিক্ষককে হাতুরিপেটার অভিযোগ বেবী মালেঙ্গা খ্যাত কাউখালীর ক্রিকেটার সোহাগের স্বপ্ন ছাই হয়ে যাবে অর্থাভাবে
সরাইলে এখন ও ১০ গ্রামের মানুষের ভরসা বাশের সাঁকো

সরাইলে এখন ও ১০ গ্রামের মানুষের ভরসা বাশের সাঁকো

জহির সিকদার, ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা সংবাদদাতাঃ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইলের হাওরবেষ্টিত অরুয়াইল ও পাকশিমুল ইউনিয়নের ১০ গ্রামের অর্ধলক্ষাধিক মানুষের চলাচলের একমাত্র ভরসা একটি মাত্র বাঁশের সাঁকো। বাঁশ দিয়ে তৈরী এই সাকু দিয়েই ঐ এলাকার মানুষদের চলাফেরা করতে হয়।
সরাইল উপজেলার অরুয়াইল বাজারের পাশ দিয়ে বয়ে গেছে ছেত্রা নদী। আর তার মাঝেই চলাচলের জন্য তৈরী করা হয়েছে এই বাঁশের সাকু।
নদীর উপর পাঁকা সেতু না থাকায় দুর্ভোগের যেন অন্ত নেই কৃষিনির্ভর এই এলাকার মানুষের। এ কারণে তাঁরা শিক্ষা, ব্যবসা-বাণিজ্যসহ নানা দিক দিয়ে পিছিয়ে পড়েছেন। সরকারীভাবে কোন সেতু তৈরী করে না দেওয়ায় এলাকাবাসী বাধ্য হয়ে বাঁশের দীর্ঘ সাঁকো তৈরি করে নিয়েছেন। এর ওপর দিয়ে এলাকার লোকজন পারাপার হয় বছরের মধ্যে সাত মাস।

উপজেলার রানিদিয়া গ্রামের কাছে রয়েছে এই বাঁশের সাঁকো। সাঁকো তৈরির উদ্যোক্তাদের একজন রানিদিয়া গ্রামের নূর ইসলাম (৬০)। তিনি বলেন, ১৯৯৭ সালে তাঁরা কয়েকজন উদ্যোগ নিয়ে এখানে তৈরি করেছিলেন বাঁশের সাঁকো। এরপর থেকে তাঁরা প্রতিবছর নভেম্বর মাসের মাঝামাঝিতে কয়েক লাখ টাকার বাঁশ, বেত, রশি ও গুনা দিয়ে সাঁকো তৈরি করে আসছেন। এই সাঁকো পারাপার হতে প্রত্যেকের কাছ থেকে দুই টাকা করে নেওয়া হয়। জুনের মাঝামাঝিতে পানি বৃদ্ধির আগেই সাঁকো ভেঙে ফেলতে হয়। এই সাঁকো দিয়ে মোটরসাইকেল ও বাইসাইকেল পারাপার হলেও রিকশা বা পণ্যবাহী ভ্যান চলাচলের সুযোগ নেই। ফলে কৃষিনির্ভর এ এলাকার মানুষ কৃষিপণ্য ঘাড়ে বা মাথায় করে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে সাঁকো পার হয়ে থাকেন। প্রতিবছর সেতু নির্মাণ ও রক্ষণাবেক্ষণে ব্যয় হয় প্রায় ১০ লাখ টাকা।

এদিকে গত ২৯ মার্চের ঝড়ে সাঁকোটি ক্ষতিগ্রস্ত হয়। পরের দিন ৩০ মার্চ সারা দিনভর ১০ গ্রামের মানুষ সাঁকো দিয়ে চলাচল করতে পারেননি। ওই দিন ৩০ হাজার টাকা ব্যয় করে সাঁকোটি মেরামত করা হয়। এই সাঁকো দিয়ে যেসব গ্রামের লোকজন চলাচল করেন তার মধ্যে রয়েছে অরুয়াইল ইউনিয়নের রানিদিয়া, অরুয়াইল, কাকুরিয়া, বনিয়ারটেক, রাজাপুর এবং পাকশিমুল ইউনিয়নের বরইচারা, পরমানন্দপুর, ফতেহপুর, ষাটবাড়িয়া ও হরিপুর গ্রাম। এসব গ্রামে অর্ধলক্ষাধিক মানুষের বসবাস। গ্রামগুলোর মানুষের অর্থনীতির প্রধান কেন্দ্র অরুয়াইল বাজার। অরুয়াইল বাজারে উপজেলা শহরে যাতায়াত করতে ছেত্রা নদী পার হতে হয়। বাজারটিতে রয়েছে সহস্রাধিক দোকানপাট। অরুয়াইল বাজার ও এর আশপাশেই রয়েছে কয়েকটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ দপ্তর।

সাঁকোর পর সাত কিলোমিটার মাটির ও আংশিক ইটের রাস্তা রয়েছে। কিন্তু সেতু না থাকায় বছরের কোনো সময়েই ওই রাস্তা দিয়ে যানবাহন চলাচল করতে পারে না। তিন মাস নৌকায় আর সাত মাস সবাইকেই হেঁটে বা মোটরসাইকেলে চড়ে যাতায়াত করতে হয়।

অরুয়াইল ইউপির চেয়ারম্যান মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া বলেন, স্বাধীনতার পর থেকে এলাকাবাসী এখানে সেতুর দাবি করে আসছে। কিন্তু এখনো সেতু হয়নি। ফলে মুমূর্ষু রোগী, প্রসূতি, নবজাতক ও বৃদ্ধদের নিয়ে বিপাকে পড়েন এলাকাবাসী।

উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান রফিক উদ্দিন ঠাকুর বিডি টাইমস নিউজ কে বলেন, অরুয়াইলে ছেত্রা নদীর ওপর সেতু নির্মাণের প্রক্রিয়া চলছে। স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের (এলজিইডি) উপজেলা প্রকৌশলী নিলুফার ইয়াছমীন বলেন, ওই স্থানে সাঁকোর স্থলে ১০০ মিটার দীর্ঘ একটি পাকা সেতু নির্মাণের পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। অনুমোদন হলে ও বরাদ্দ পেলে কাজ শুরু হবে।

নিউজটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন




© All rights reserved © 2019 pirojpursomoy.com
Design By Rana