সোমবার, ২০ মে ২০২৪, ১১:৫৩ পূর্বাহ্ন

সর্বশেষ সংবাদ :
ভান্ডারিয়ায় মিরাজুল ইসলামের জন্মদিন উপলক্ষে দোয়া অনুষ্ঠান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে সকল ষড়যন্ত্র রাজপথে মোকাবেলা করতে হবে — যুবলীগ চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস পরশ ভান্ডারিয়ায় শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা ভান্ডারিয়া উপজেলা যুবলীগের বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত ভান্ডারিয়ায় মৎস্যজীবিদের মাঝে জাল ও বকনা বাছুর বিতরণ গ্রাম বাংলার ঐতিহ্য কাচারি ঘর বিলুপ্তির পথে ভান্ডারিয়া উপজেলা নির্বাচনে বিনা প্রতিদ্বন্দীতায় চেয়ারম্যানসহ দুই ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচিত ভান্ডারিয়ায় পেনশন স্কিম মেলা উদ্বোধন ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে পিরোজপুরে উপজেলা চেয়ারম্যান নির্বাচিত হলেন যারা উপজেলা নির্বাচনকে কেন্দ্র করেইন্দুরকানীতে শেখ রাসেল স্মৃতি পাঠাগারে আগুন জেপি’র চেয়ারম্যান প্রার্থী মাহিবুল হোসেনের মনোনয়নপত্র বাতিল পিরোজপুরে যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামি ঢাকায় গ্রেফতার ভান্ডারিয়ায় ককটেল ফাটিয়ে, কুপিয়ে ব্যবসায়ীর টাকা ছিনতাই ভান্ডারিয়া উপজেলা নির্বাচনে তিন পদে ৬ প্রার্থীর মনোনয়ন দাখিল কাউখালীতে গাজার গাছ সহ যুবক গ্রেফতার ভান্ডারিয়ার অটো চালক কাওসারের লাশ কাঠালিয়ায় উদ্ধার কাউখালীতে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় মিশুক ড্রাইভার নিহত ভান্ডারিয়া উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে মিরাজুল ইসলামের মনোনয়নপত্র দাখিল ভান্ডারিয়ায় স্কাউট ভবন নির্মাণের ভিত্তিপ্রস্তর উদ্বোধন ভান্ডারিয়ায় পিকআপ চাপায় বৃদ্ধের মৃত্যু
দাখিল পরীক্ষা দিচ্ছেন মা, সন্তান কোলে নিলেন ডিসি

দাখিল পরীক্ষা দিচ্ছেন মা, সন্তান কোলে নিলেন ডিসি

নোয়াখালীতে শিশুসন্তান আবদুল্লাহ আল তাওসিবকে সঙ্গে নিয়ে দাখিল পরীক্ষা দিচ্ছিলেন মা নারগিস সুলতানা (২০)। কেন্দ্র পরিদর্শনে গিয়ে এ দৃশ্য দেখে শিশুটিকে কোলে নিয়ে আদর করেন জেলা প্রশাসক দেওয়ান মাহবুবুর রহমান।

রোববার (৩০ এপ্রিল) দুপুরে জেলা সরকারি বালিকা বিদ্যালয় কেন্দ্রে শিশুকে সঙ্গে নিয়েই মদিনা একাডেমির এক শিক্ষার্থী পরীক্ষা দিতে আসে।

ঐ স্কুলের প্রধান শিক্ষিকা ও কেন্দ্রসচিব মেহেরুন নেছা বলেন, বাচ্চা কোলে নিয়েই আল মদিনা একাডেমির এক শিক্ষার্থী পরীক্ষা দিতে আসে। নানির কোলে রেখে পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে সে। এসময় জেলা প্রশাসক কেন্দ্র পরিদর্শনে এলে অনেকক্ষণ শিশুটিকে কোলে রাখেন এবং মা নারগিস সুলতানার খবর নেন ও বিভিন্ন পরামর্শ দেন।।

জেলা প্রশাসক দেওয়ান মাহবুবুর রহমান বলেন, ‘আমাদের দেশে অপ্রাপ্তবয়স্ক মেয়েদের বিয়ের প্রবণতা বেশি। তাই কেন্দ্র সচিব থেকে বাচ্চা কোলে নিয়ে পরীক্ষা দেওয়ার খবর পেয়ে সেখানে যাই। খোঁজখবর নিই। পরে শিক্ষার্থীর মায়ের কাছে জানতে পেরেছি ১৮ বছর হওয়ার পর বিয়ে দিয়েছেন। শিশুটি অনেক ফুটফুটে। তাকে অনেকক্ষণ কোলে রাখি। এসময় মেয়েটি পরীক্ষা দিচ্ছিল।’

এসময় অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) অজিত দেবসহ ওই কেন্দ্রের শিক্ষকরা উপস্থিত ছিলেন।

নোয়াখালীতে ৯টি উপজেলার ৭৪টি কেন্দ্রে এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় ৪৫ হাজার ৬৪৫ শিক্ষার্থী অংশ নেয়। এরমধ্যে এসএসসিতে ৩৪ হাজার ৩১৫ জন, দাখিলে ৯ হাজার ২১৩ জন ও ভোকেশনালে ২ হাজার ১১৭ জন।

Print Friendly, PDF & Email

নিউজটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন




© All rights reserved © 2019 pirojpursomoy.com
Design By Rana
error: Content is protected !!